অভিযোগকারীর স্বীকারোক্তি

কাজিপুরের যুবলীগ নেতার মানহানীর চেষ্টা অন্যের প্ররোচনায়

সিরাজগঞ্জের কাজিপুর উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আলী আসলামের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ তুলে নিয়েছেন অভিযোগকারী তরুণী সাদিয়া আফরিন স্বপ্না।  নিজের ভুল বুঝতে পেরে অনুতপ্ত হয়ে গত ৩ নভেম্বর সকল অভিযোগ সজ্ঞানে প্রত্যাহার করে নিয়ে ৩০০ টাকা মূল্যের স্ট্যাম্পে লিখিত স্বীকারোক্তি দেন তিনি।
লিখিত স্বীকারোক্তিতে ওই তরুণী বলেন, আমি সাদিয়া আফরিন সপ্না,  পিতা- মোঃ আব্দুর রশিদ, গ্ৰাম- ভেটুয়া জগন্নাথপুর, ইউনিয়ন- চরগিরিশ, উপজেলা- কাজিপুর, জেলা- সিরাজগঞ্জ। 
আমি ভুল বুঝিয়া ও অন্যের দ্বারা প্রভাবিত হইয়া
গত ১ ডিসেম্বর ২০২৩ তারিখে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক লাইভে এসে কাজিপুর উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আলী আসলামের বিরুদ্ধে অন্যের প্ররোচনায় কুরুচিপূর্ণ ও মানহানীকর বক্তব্য প্রদান করি, যা পরবর্তীতে কিছু অতি উৎসাহী সংবাদকর্মী ফেসবুকের মাধ্যমে ফলাও করে প্রচার করে। পরবর্তীতে আমি নিজের ভুল বুঝতে পেরে কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য প্রত্যাহার করিলাম, আমি হাজিরান মজলিসে সজ্ঞানে সুস্থ্য মস্তিষ্কে উক্ত ব্যক্তি উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আলী আসলামকে আমার আনীত অভিযোগ থেকে অব্যাহতি প্রদান করিলাম। পরবর্তীতে আমি বা আমার পরিবারের কেহ বা আমি কোনো অভিযোগ বা মামলা মোকদ্দমা করিতে পারিবে না। তাহা  হইলে আইনে অগ্ৰাহ্য বলে বিবেচিত হইবে।

এ লিখিত স্বীকারোক্তিতে ৫ জনকে সাক্ষী করা হয়েছে। তাদের মধ্যে নাটুয়ারপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান তোজাম্মেল হক ছাড়াও জাকির হোসেন তালুকদার, শহিদুল ইসলাম ও রাসেল রয়েছেন। 

বিজ্ঞাপন