আদমদীঘিতে বীর মুক্তিযোদ্ধার মেয়েকে বেধড়ক মারপিটে হত্যার চেষ্টা

বগুড়ার আদমদীঘিতে পূর্ব শক্রতার জেরধরে পুতুল বানু (৩৫) নামের এক বীর মুক্তিযোদ্ধার মেয়েকে প্রতিবেশিদের বেধড়ক মারপিটে হত্যার চেষ্টা করার অভিযোগ উঠেছে। পরে আহত বীর মুক্তিযোদ্ধার মেয়েকে আদমদীঘি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গত বুধবার (১২জুন) সন্ধ্যায় আদমদীঘি উপজেলার কুন্দগ্রাম ইউপির পূর্ব সিংড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্ততি চলছে বলে আহত পুতুল বানুর স্বামী জাহাঙ্গীর আলম জানান। পুতুল বানু পূর্ব সিংড়া গ্রামের জাহাঙ্গীর আলমের স্ত্রী ও ডুমুরী গ্রামের মরহুম বীর মুক্তিযোদ্ধা আহম্মাদ আলীর মেয়ে। 
আদমদীঘির ডুমুরী গ্রামের মরহুম বীর মুক্তিযোদ্ধা আহম্মাদ আলীর মেয়ে পুতুল বানুর বিয়ে হয় একই উপজেলার পূর্ব সিংড়া গ্রামের জাহাঙ্গীর আলমের সাথে। জাহাঙ্গীর আলম জানায়, তার সাথে প্রতিবেশি কোরবান আলীর বাড়ির সিমানা নিয়ে বিরোধ চলে। বিষয়টি স্থানীয় লোকজন মিমাংসা করে দিলেও কোরবান আলী মাঝে মধ্যে হুমকি ও তার শ^শুড় মরহুম বীর মুক্তিযোদ্ধা আহম্মাদ আলী সম্পর্কে নানা অসৌজন্য কথাবার্তা বলতো। এ নিয়ে তাদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ চলে। গত বুধবার জাহাঙ্গীর আলম তার এক আত্মীয়ের নামাজে জানাজা যান। ওইদিন সন্ধ্যা ৭টায় আতামীয়ের নামাজে জানাজা শেষে তার স্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধার মেয়ে পুতুল বানু পূর্ব সিংড়া বাড়ির মেইন দরজার তালা খুলতে গেলে তাকে একা পেয়ে প্রতিবেশি কোরবান আলীসহ তার লোকজন পুতুল বানুকে ঝাপটে ধরে পাশের ঝোপের নিকট নিয়ে বেধড়ক মারপিট করে গুরুতর আহত করেন। এসময় তার স্বামীসহ প্রতিবেশিরা দেখতে পেয়ে সেখান থেকে তাকে উদ্ধার করে আদমদীঘি হাসপাতালে ভর্তি করান। এ বিষয়ে এখনও কেউ থানায় অভিযোগ করেনি অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে পুলিশ জানায়।
 

বিজ্ঞাপন