বগুড়ায় উৎসব মুখর পরিবেশে ভোট গ্রহন চলছে

২২

বিজয় বাংলা ।।   বগুড়া পৌরসভা নির্বাচনে শান্তিপুর্ন পরিবেশে ভোট গ্রহন শুরু হয়েছে সকাল ৮ টা থেকে। সকাল থেকে ভোট কেন্দ্র গুলোতে উৎসব মুখর পরিবেশ বিরাজ করছে। সকাল থেকেই কেন্দ্রগুলোতে ভোটারদের ব্যাপক উপস্থিতির কারনে ভোট গ্রহন কর্মকর্তাদেরকে হিমশিম খেতে হচ্ছে। অনেক দিন পর সুন্দর পরিবেশে ভোট দিতে পেরে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন ভোটার গন। তবে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহন করায় ভোটারদের অনেকের বুঝতে পারছেন না।ফলে ভোট গ্রহনে সময় বেশী লাগছে।

রবিবার (২৮ ফেব্রুয়ারী) সকাল থেকে বগুড়া পৌরসভার বিভিন্ন ভোট কেন্দ্র ঘুরে উৎসব মুখর পরিবেশ দেখা গেছে।
জানাগেছে, দেশের সর্ব বৃহৎ পৌরসভা বগুড়া। প্রায় ৭৬ বর্গকিলোমিটার আয়তনের এই পৌরসভা ২১ টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত। আর ভোটর রয়েছেন দুই লাখ ৭৫ হাজার ৮৭০ জন। ১১৩টি ভোট কেন্দ্রে ৮৩০ টি বুথে সকাল ৮ টা থেকে ইভিএমএ ভোট গ্রহন শুরু হয়ে চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। বগুড়া পৌরসভার ১৯ নং ওয়ার্ডের মানিক চক উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার শহীদ উল আজাদ জানান ২৪৭০ ভোটারের মধ্যে সকাল সাগে ৯ টার মধ্যে ২০০ ভোটার ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছে। আরো শতাধিক ভোটার লাইনে দাঁড়িয়েছেন ভোটাধিকার প্রয়োগের জন্য। এই কেন্দ্রে আগত ভোটারগন বলেন তারা অনেক দিন পর ভোট কেন্দ্রে উৎসব মুখর পরিবেশে ভোট দিতে পেরেছেন। ৪ নং ওয়ার্ডের জুবলী উচ্চ বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার রাফেল আলী জানান সকাল থেকেই ভোটারদের উপস্থিতি লক্ষ্যনীয়। ব্যাপক আগ্রহ নিয়ে মানুষ ভোটকেন্দ্রে আসছেন। এবং বেলা বাড়ার সাথে সাথে ভোটারদের চাপ বাড়ছে। এই কেন্দ্রে ৩৪১৮ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

এদিকে সুষ্ঠ,নিরপেক্ষ ও শান্তিপুর্ন পরিবেশে ভোট গ্রহনের আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা শুরু হয়েছে শনিবার রাত থেকেই। পুলিশ,র্যাব,আনসার ছাড়াও ১৬ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে বগুড়া পৌর এলাকায়। সকাল থেকেই প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর অবস্থানে সাধারন ভোটারদের উপস্থিতি বাড়ছে। রির্টানিং অফিসারের কার্যালয় সুত্রে জানাগেছে, বগুড়া পৌরসভা নির্বচনে মেয়র পদে আওয়ামীলীগ ও বিএনপিসহ চারজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ২১টি ওয়ার্ডে সাধারন কাউন্সিল পদে প্রার্থী রয়েছেন ১৩০ জন এবং সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর (নারী) পদে প্রার্থী রয়েছেন ৫০ জন। বগুড়ার পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভুঞা বলেন ভোট কেন্দ্রে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করা হলে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.