1. zahersherpur@gmail.com : abu zaher Zaher : abu zaher Zaher
  2. Bijoybangla2008@gmail.com : bijoybangla :
  3. harezalbaki@gmail.com : Harez :
  4. mannansherpur81@gmail.com : mannan :
  5. wadut88@gmail.com : wadut :
সোমবার, ১৭ মে ২০২১, ০৫:৫১ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
ঈদে আত্মীয়ের বাড়ি বেড়াতে যাওয়া গার্মেন্টস কর্মীকে ধর্ষণ শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস সমৃদ্ধ বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় তাৎপর্যপূর্ণ ইসরায়েলকে সমর্থন: ডেমোক্রেটদের তোপের মুখে বাইডেন ভারতফেরত ৩ শিক্ষার্থীর করোনা পজিটিভ গোলরক্ষকের গোলে শেষ রক্ষা লিভারপুলের বগুড়ার মালগ্রামে এক যুবককে ছুরিকাঘাত বগুড়ায় নাগর নদে ডুবে শিশু নিহত বগুড়ায় ফ্রি ফায়ার গেম খেলতে না পারায় কিশোরের আত্মহত্যা বগুড়ায় মোটর সাইকেল দূর্ঘটনায় তরুণ আইনজীবী নিহত শাজাহানপুরে তুলার গোডাউনে আগুন করোনা আতঙ্কেও প্রকৃতির কোলজুড়ে হাসছে অপরূপ কৃষ্ণচূড়া আর সোনালু ঈদের দ্বিতীয় দিনে বাড়ল করোনায় মৃত্যু ও আক্রান্ত চলমান বিধিনিষেধ বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি ইতালিতে বাংলাদেশি নারীদের ঈদ পুনর্মিলনী ‘কাজ না করলে পয়সা বেশি কুষ্টিয়ায় বাংলাদেশী কৃষককে ফেরত দিয়েছে বিএসএফ পলাশবাড়ীতে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত- ১ আহত-২ শিবগঞ্জে নাবালিকা ভাতিজিকে ধর্ষণের অভিযোগে ধর্ষক চাচা গ্রেফতার বগুড়ায় ৫০ নমুনায় শনাক্ত ৮ আজ সারাদেশে ঝড়-বৃষ্টির পূর্বাভাস

কাজিপুরে এইখানে এক নদী ছিল

  • সর্বশেষ সংস্করণ : সোমবার, ২২ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ১ বার দেখা হয়েছে

টি এম কামাল ॥ আর কয়েক বছর পর স্মৃতির পাতা থেকে হয়তো হারিয়ে যাবে ইছামতি নদী। স্থানীয় লোকজন স্মৃতি রোমন্থন করতে গিয়ে বলবেন, এইখানে এক নদী ছিল…। কালের আবর্তনে মরে গেছে সিরাজগঞ্জের কাজিপুরের ইছামতি নদী। পানি শূন্য হয়ে পড়ায় নদীর বুকে আবাদ হচ্ছে বিভিন্ন ফসলের। স্থানীয়রা জানান, আগে ঘর থেকে বের হলেই শোনা যেতো নদীর কলকল ধ্বনি। রং-বেরংয়ের পালতোলা নৌকা প্রকৃতিতে যোগ করতো অপরূপ সৌন্দর্য। মাঝি-মাল্লার ভাটিয়ালী গানে নদী মুখরিত থাকতো সারাক্ষণ। দিনভর জনসাধারণের পদভারে জমে উঠতো নদীর ঘাটগুলো। এ সবই এখন শুধুই স্মৃতি।

Alal Group

কালের আবর্তনে কাজিপুরের পশ্চিম সিমান্ত বুক জুড়ে এখন সবুজের সমারোহ। লোকজন জবর-দখল করে আবাদ করছে। নদী শুকিয়ে যাওয়ার কারণে বেকার হয়ে পড়েছে এলাকার শত শত মৎস্যজীবী। অভিজ্ঞ লোকজনের ধারণা নদীটি খনন করা হলে মৎস্য চাষসহ আবাদি জমিতে সেচের ব্যবস্থা করা যাবে। কৃষকরা উপকৃত হবে। সাশ্রয় হবে অনেক টাকা। স্থানীয় লোকজন বলছেন, একসময় এ নদীর উপর দিয়ে পাল তোলা নৌকা চলতো। দূর-দূরান্ত থেকে ব্যবসায়ীরা আসতো ব্যবসা করার জন্য। নদী পথে বিভিন্ন প্রকার পণ্য সরবরাহ করতো লোকজন। কিন্তু শুকনো মৌসুমে সেই নদীর পানি প্রবাহ এখন শূন্যের কোঠায়।

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
© সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত © ২০২১ বিজয় বাংলা
Theme Download From ThemesBazar.Com
RSS
Follow by Email