ধুনটে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার বিরুদ্ধে বিডিসহ দরপত্র ছিনতাইয়ের অভিযোগ

ধুনট (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার ধুনট পৌর স্বেচ্ছসেবক লীগের আহবায়ক জাহাঙ্গীর আলমের বিরুদ্ধে জলমহাল ইজারার দরপত্র ও বিডি ছিনতাইয়ের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় উপজেলার অলোয়া পীরহাটি মৎস্যজীবি সমবায় সমিতি লিমিটেডের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তার বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। জাহাঙ্গীর আলম ধুনট পৌর এলাকার সদরপাড়ার শাহজাহান আলীর ছেলে।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, মথুরাপুর ইউনিয়নের অলোয়া মৌজায় ১৪৩৯ দাগের ৫.৯৫ একর সরকারি খাস খতিয়ানভুক্ত জলাশয় প্রতি তিন বছর পরপর উপজেলা পরিষদ থেকে ইজারা বন্দোবস্ত দেয়া হয়। প্রতি বছরের ন্যায় এ বছর বাংলা ১৪২৮ থেকে ১৪৩০ সাল পর্যন্ত উপজেলা জলমহাল ব্যবস্থাপনা কমিটি ওই জলমহালটি ইজারা বন্দোবস্ত দেয়ার জন্য দরপত্র আহবান করেন।

বৃহস্পতিবার দুপুর ২টা পর্যন্ত দরপত্র জমা দেয়ার শেষ দিন ছিল। দুপুর পৌনে দুইটার দিকে অলোয়া পীরহাটি মৎস্যজীবি সমবায় সমিতি লিমিটেডের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তার কার্যালয়ে টেন্ডার বাক্সে দরপত্র ফেলার চেষ্টা করেন। এসময় আনোয়ার হোসেনের হাত থেকে দরপত্র ও ১৮ হাজার টাকার বিডি (অগ্রণী ব্যাংক বিডি নম্বর ২৭৪২২৬৪) ছিনিয়ে নেন স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম। এ কারনে ওই বাক্সে দরপত্র জমা দিতে পারেননি আনোয়ার হোসেন।

এ বিষয়ে আনোয়ার হোসেন বলেন, উপজেলা পরিষদের বাক্সে দরপত্র জমা দেয়ার পুর্বেই স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম বিডিসহ দরপত্রটি ছিনিয়ে নেয়। সরকারি রাজস্ব ফাঁকি দিতে একটি পক্ষের হয়ে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা এ ঘটনাটি ঘটিয়েছে। এ কারনে বৃহস্পতিবার উপজেলা জলমহাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তার নিকট লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে।

ধুনট পৌর স্বেচ্ছসেবক লীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম বলেন, দরপত্র ছিনতাইয়ের ঘটনার সাথে আমি জড়িত ছিলাম না। আমাকে ফাঁসানোর জন্য মিথ্যা অভিযোগ করা হয়েছে। আমি ওই সময় ধুনট শহরের বাইরে অবস্থান করেছি। তাই এ বিষয়টি আমার জানা নেই। ধুনট উপজেলা জলমহাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা (ইউএনও) সঞ্জয় কুমার মহন্ত বলেন, অভিযোগটি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.