টনক নরেছে কর্তৃপক্ষের প্রশস্ত হচ্ছে কাউনিয়ায় স্বপ্নের একতা সেতুর সেই মরন বাঁক

২৫

কাউনিয়া (রংপুর) প্রতিনিধি  :  কাউনিয়ায় হারাগাছ ইউনিয়নে মরা তিস্তা নদীর ওপর নির্মিত স্বপ্নের একতা সেতুর উত্তর প্রান্তের সংযোগ সড়কে সুষ্ঠু পরিকল্পনার অভাবে এমন বাঁক তৈরী করা হয়েছে যা এলাকার লোকজন বলছেন ওটি ‘মরন বাঁক’। নির্মানাধীন সেতুর সেই বাঁকে বড় ধরনের দুর্ঘটনাও ঘটতে পারে অহরহ। এ কারণে উদ্বোধনের আগেই এলাকাবাসী সেতুতে সংযোগ সড়কটির মরন বাঁক পরিবর্তন করে রাস্তা প্রশস্ত করার দাবী জানিয়ে এলাকাবাসী।

তারই প্রেক্ষিতে বিজয় বাংলা পত্রিকায় একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। প্রতিবেদনটি প্রকাশের পর বিষয়টি নিয়ে নড়েচড়ে বসে সংশ্লিষ্ট কর্তারা, ফলে শুরু হয় বাঁক প্রশস্ত করার তোরজোর। সংশ্লিষ্টদের তোরজোরে অবশেষে মিলল সমাধান। প্রতিবেদনটি প্রকাশের পর এলজিইডি রংপুর এর নির্বাহী প্রকৌশলী রেজাউল হক সরজমিনে এসে ব্যক্তি মালিকানার কিছু জমি নিয়ে বাঁক প্রশস্ত করার চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত ও নির্দেশ প্রদান করেন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে। এ বিষয়ে কাউনিয়া উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ আসাদুজ্জামান জেমি জানান, বাঁকটিতে রাস্তা প্রশস্তের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে, ব্রিজ খুলে দেয়ার আগেই বাঁকটি প্রশস্ত করা হবে। আশা করি বাঁকটি প্রশস্ত হলে চলাচলে আর বাঁধার সৃষ্টি হবে না। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ উলফৎ আরা বেগম জানান,বিষয়টি নিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে কথা হয়েছে, আশা করছি খুব দ্রুত সমাধান হবে।

উপজেলা চেয়ারম্যান আনোয়ারুল ইসলাম মায় জানান, স্বপ্নের একাতা সেতুর বাঁকের সমস্যার সমাধানের জন্য কর্তৃপক্ষ কাজ করছে, আশা করি সমাধান হবে। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) উপজেলা দপ্তর সূত্র জানায় ২ কোটি ৩৫ লক্ষ ২৯ হাজার ৪শ’৩৪ টাকা ব্যয়ে ৬০ মিটার দৈর্ঘ ৫.৫০ মিটার প্রস্থ স্পেন গার্ডারের উপর মরা তিস্তা নদীর ওপর একতা সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু হয় ২৪/০১/২০১৮ সালে। সেতুর নির্মাণ কাজ ২২/০৭/২০১৯ সালে শেষ হওয়ার কথা, তা বৃদ্ধি করে ৩০/০৫/২০২০ করা হলেও সৈকত-আলমগীর জাহান ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের গাফলতির কারণে সেতুর নির্মান কাজ আজও শেষ হয়নি।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.