চারাগাঁও সীমান্ত দিয়ে ২২০ বস্তা চাল পাঁচারের অভিযোগ

হাওরাঞ্চল প্রতিনিধি,সুনামগঞ্জ:
সুনামগঞ্জে চারাগাঁও সীমান্ত এলাকা দিয়ে ভারত থেকে ২২০বস্তা চাল পাঁচারের খবর পাওয়া গেছে। রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে পাচাঁরকৃত চালের বর্তমান বাজার মূল্য প্রায় ৪ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা। আর এই ঘটনাটি ঘটেছে আজ সোমবার (৮ই ফেব্রুয়ারী) ভোরে। এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়- সম্প্রতি জেলার তাহিরপুর উপজেলার বালিয়াঘাট ক্যাম্পের বিজিবি সদস্যরা চারাগাঁও ক্যাম্পের সোর্স পরিচয়ধারী শফিকুল ইসলাম ভৈরব ও রমজান মিয়ার পাচাঁরকৃত অবৈধ চালের চালান আটক করার পর দীর্ঘদিন ভারত থেকে চাল পাচাঁর বন্ধ থাকে। এরপর গত ১৫দিন আগে আবার চারাগাঁও এলসি পয়েন্ট দিয়ে চাল পাচাঁর শুরু করে সোর্সরা। কিন্তু ভারতের পাচাঁরকারীদের সাথে টাকা-পয়সার ভাগ ভাটোয়ারা নিয়ে সমস্যা দেখা দেওয়ায় আবারও চাল পাচাঁর বন্ধ হয়ে যায়।

এমতাবস্থায় গত সপ্তাহ খানেক যাবত চাল পাচাঁর বন্ধ থাকার পর আজ সোমবার (৮ই ফেব্রুয়ারী) ভোরে চারাগাঁও ছড়ার পূর্ব দিকে অবস্থিত চোরাই চাল ব্যবসায়ী আনোয়ার হোসেনের বাড়ির সামনের চোরাই পথ দিয়ে ভারত থেকে ২২০বস্তা চাল পাচাঁর করে সোর্স পরিচয়ধারী শফিকুল ইসলাম ভৈরব,রমজান মিয়া ও তাদের ব্যবসায়িক পার্টনার লালঘাট গ্রামের শফিকুল ইসলাম,ওহাব মিয়া ও আনোয়ার হোসেন। পাচাঁরকৃত চালের মধ্যে রয়েছে আতব ও সিদ্দ। ভারত থেকে বাংলা টাকায় ৫০ কেজি ওজনের ১বস্তা চাল কেনা হয় ১৫৬০টাকায়। তারপর সেই চাল বিক্রি করা হয় ২হাজার টাকায়। আর এই চাল পাচাঁরের জন্য চারাগাঁও বিজিবি ক্যাম্পের নামে ১২০টাকা করে চাঁদা নেয় সোর্স ভৈরব ও রমজান। তার মধ্যে ২০টাকা দুই সোর্সের কমিশন বলে জানাগেছে।

এব্যাপারে জানাতে চারাগাঁও বিজিবি ক্যাম্পের সরকারী মোবাইল নাম্বারে বারবার কল করার পর কেউ ফোন রিসিভ না করার কারণে কারো বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.