কাউনিয়ায় পল্লী বিদ্যুতের লোডশেডিং গ্রাহকরা অতিষ্ঠ

জনবল সংকট, লোডশেডিং বৃদ্ধি

২৫

কাউনিয়া (রংপুর) প্রতিনিধি :  কাউনিয়ায় পল্লী বিদ্যুৎ লাইন সংস্কারের অজুহাতে বিনা নোটিশে দিনের পর দিন বিদ্যুৎ বন্ধ ও মাত্রাতিরিক্ত লোডশেডিং এ গ্রাহকরা অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। ভরা সেচ মৌসুমে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ না পাওয়ায় দিন দিন গ্রাহকদের মাঝে অসন্তষ বেড়েই চলেছে। নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুতের দাবীতে উপজেলা ও হারাগাছ পৌর সভায় একাধিক বার মানববন্ধন করেও কাজের কাজ কিছুই হয়নি। পল্লী বিদ্যুৎ বিভাগ তাদের নিয়মেই চলছে। একারণে যে কোন মূর্হতে গ্রাহকরা বিক্ষোভে ফেটে পড়তে পারে। পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি রংপুর-২ এর আওতায় কাউনিয়া উপজেলায় ৮শ’২ কিলোমিটার বিদ্যুৎ লাইনে ৩৮ হাজার গ্রাহক রয়েছে। এর মধ্যে ২৩শত বাণিজ্যিক ১৪শত সেচ আর বাকীটা আবাসিক গ্রাহক।

শতভাগ বিদ্যুতের আওতায় আসা এ উপজেলায় বিদ্যুতের চাহিদা ৫.৫ মেগাওয়াট। কিন্তু সরবরাহ কম থাকায় বিদ্যুতের লোডশেডিং নিত্য নৈমান্তিক ব্যাপারে পরিনত হয়েছে। বিদ্যুতের কাঠের খুঁটি পরিবর্তন, লাইন সংস্কারের অজুহাতে প্রায় ১ মাস ধরে সকাল ৯ টা থেকে সন্ধা ৬ পর্যন্ত টানা বিদ্যুৎ বন্ধ থাকছে। সন্ধায় বিদ্যুৎ চালু করার ১ ঘন্টা পর আবারও ২-৩ ঘন্টা বিদ্যুৎ বন্ধ থাকছে। এতে করে চাল কল, ছ’মিল, সেচ পাম্প, বিদ্যুৎ চালিত বিভিন্ন কারখানায় উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে। শিক্ষার্থীদের পড়া লেখার ব্যাঘাত ঘটছে। হারাগাছ পৌর বিদ্যুৎ গ্রাহক সংগ্রাম পরিষদের নেতা আবুল হাসনাত লাভলু বলেন দেশের বৃহৎ বিড়ি শিল্প নগরী হারাগাছে লোডশেডিং এর কারণে কলখারখানা বন্ধ থাকায শ্রম জীবি মানুষের ত্রাহি অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। লোডশেডিংয়ের পাশাপাশি অতিরিক্ত বিল প্রদান আর গ্রাহক হয়রানি তো রয়েছে। বিদ্যুৎ গ্রাহকগণ এর থেকে পরিত্রাণ চায়। পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি কাউনিয়া উপজেলা জোনাল অফিস সূত্রে জানাগেছে অফিসে জনবল সংকট থাকায় কাজের কিছুটা ব্যাঘাত ঘটছে। ১৭ জন লাইন ম্যানের স্থলে রয়েছে ১০ জন লাইন ম্যান, ইলেক্ট্রিশিয়ান দিয়ে চালানো হচ্ছে লাইনের কাজ। এ ছাড়াও জুনিয়র ইন্জিনিয়ার ১জন, বিলিং রিডার ৩ জন, ওয়ারিং ইন্সপেক্টর ১ জন, বিল সহকারী ১ জনের পদ শুন্য রয়েছে। এ কারণে গ্রাহক সেবা দিতে তাদের কিছুটা হিমসিম খেতে হচ্ছে। পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি কাউনিয়া উপজেলা জোনাল অফিসের ডিজিএম নিশীত কুমার কর্মকার জানান, বিদ্যুৎ লাইন সংস্কারের কারণে কিছু দিন ধরে দিনের বেলায় বিদ্যুৎ লাইন বন্ধ রাখা হচ্ছে। দু-একদিনের মধ্যে সংস্কার কাজ শেষ হলে বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হবে। তিনি বলেন চাহিদা মত বিদ্যুৎ বরাদ্দ আসে লোডশেডিং থাকবে না।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.