কয়রায় দ্রæত টেকসই বেঁড়িবাঁধ নির্মাণ করে মানুষকে নদী ভাঙন থেকে রক্ষা করা হবে –পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী

৫৮

 আম্পানের তান্ডবে কয়রার পাউবোর ক্ষতিগ্রস্ত বেড়ীবাঁধ সহ কাশিরহাটখোলা নির্মাণাধীন বাঁধ পরিদর্শন করেছেন পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী কর্ণেল (অবঃ) জাহিদ ফারুক (এমপি)। তিনি শুক্রবার দুপুর ১২ টায় কয়রা উপজেলার পাউবোর ১৩-১৪/১ ও ২নং পোল্ডারের দক্ষিণবেদকাশি ও উত্তর বেদকাশি ইউনিয়নের কপোতাক্ষ নদীর ক্ষতিগ্রস্থ সহ নির্মাণাধীন বেঁড়িবাঁধ পরিদর্শনকালে একথা বলেন। এসময় স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আকতারুজ্জামান বাবু ও উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। উল্লেখ্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় উপকুলীয় অঞ্চলে পানি উন্নয়ন বোর্ডের ক্ষতিগ্রস্থ বেঁড়িবাঁধ এবং আম্পানে ভেসে যাওয়া বেঁড়িবাঁধ নির্মাণ কাজ করছেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক আম্পান পরবর্তী ৩ বার কয়রার বেঁড়িবাঁধ পরিদর্শন করেছেন। শুক্রবার পরিদর্শন কালে মাননীয় মন্ত্রী আম্পানে ভেসে যাওয়া ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের সাথে কথা বলে তাদের সুখ দুঃখের কথা শোনেন এবং সে সমস্ত পরিবার নদী ভাঙনে নিংস্ব হয়েছে তাদের ঘর নির্মাণ করে দেওয়ার কথা বলেন। এছাড়া টেকসই বেঁড়িবাঁধ নির্মাণে যে সব জমি ব্যবহার হবে সে সকল জমি মালিকদের ৩ গুন ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে। তিনি আরও বলেন, চলতি মাসেই এ এলাকার জন্য ১ হাজার কোটি টাকা একনেকে পাশ হলেই আগামী মাসের মধ্যেই কয়রার টেকসই বেড়িবাঁধ নির্মান কাজ শুরু করা হবে। মাননীয় মন্ত্রী ও স্থানীয় সাংসদ কাশিরহাটখোলা বিধ্বস্থ একটি জামে মসজিদে জুম্মা নামায আদায় করেন। নামায শেষে সংসদ সদস্য আকতারুজ্জামান বাবু স্থানীয় সংখ্যা লঘু সম্প্রদায়ের নারী ও পুরুষের সাথে মত বিনিময় করেন এবং তাদের একাধিক দাবী মেনে নিয়ে তিনি বলেন, অবৈধ জলমহল দখলদারদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা সহ বিলীন হওয়া বাড়ী ঘর বালু দিয়ে ভরাট করে দেওয়া হবে। এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন পানি সম্পদ মন্ত্রনালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোঃ রোকনুদৌল্যা, পাউবোর অতিরিক্ত মহা-পরিচালক ড.মোঃ মিজানুর রহমান, প্রধান প্রকৌশলী মোঃ রফিকুল ইসলাম, সাতক্ষীরা পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী শুধাংশ শেখর সরকার, কয়রা উপজেলা চেয়ারম্যান এস এম শফিকুল ইসলাম, শ্যামনগর উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউল হক দোলন, কয়রা উপজেলা নির্বাহী অফিসার অনিমেষ বিশ্বাস, কয়রা থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ রবিউল হোসেন, ভাইস চেয়ারম্যান এ্যাডঃ কোমলেশ চন্দ্র সানা, ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব সরদার নুরুল ইসলাম, ইউপি চেয়ারম্যান ও যুবলীগ নেতা জিএম আব্দুল্লাহ আল মামুন লাভলু, মোহাঃ হুমায়ুন কবির, কয়রা সরকারি মহিলা কলেজের উপাধাক্ষ্য এইচ,এম নজরুল ইসলাম, পাউবোর আমাদী সেকশন কর্মকর্তা মশিউল আবেদিন, আওয়ামীলীগ নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা সরদার মাহবুবুর রহমান, মোঃ হুমায়ুন কবির, এসএম হারুন আর রশিদ, প্রভাষক শাহাবাজ আলী, গনেশ মন্ডল, আঃ সামাদ গাজী, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মোঃ শরিফুল ইসলাম টিংকু প্রমুখ।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.