বগুড়ার সারিয়াকান্দিতে নৌকার ভোট নিজেদের পক্ষে নিতে তৎপর দুই বিদ্রোহী

পৌরসভা নির্বাচনে আ’লীগের প্রার্থীতা বাতিল

বিজয় বাংলা বিডি ।।   ভোটের রাজনীতি জমে উঠেছে বগুড়ার সারিয়াকান্দি পৌরসভায়। মেয়র পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থীতা বাতিল হওয়ায় নৌকার ভোট নিজেদের পক্ষে নেওয়ার সুযোগ তৈরি হয়েছে দলের দুই বিদ্রোহী প্রার্থীর। তাদের একজন আওয়ামী লীগের সারিয়াকান্দি উপজেলা কমিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলমগীর শাহী সুমন মেয়র পদে এখনও বহাল থাকায় কিছুটা বাড়তি সুবিধা পাওয়ার চেষ্টা করছেন।  তবে হাল ছাড়তে নারাজ একই দলের সারিয়াকান্দি উপজেলা কমিটির আরেক সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রশিদ ফারাজী। ‘শুধু দলই করে গেলাম কিন্তু জনগণের সেবা করার সুযোগ কখনও পাইনি’-এমন বক্তব্য দিয়ে তিনি নৌকা ভক্ত জনগণের সমর্থন সহানুভূতি পাওয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

অবশ্য মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়া সত্তে¡ও দলের বিদ্রোহী দুই প্রার্থীর তৎপরতা আমলে নিচ্ছেন না আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মতিউর রহমান মতি। প্রার্থীতা ফিরে পাওয়ার আশায় তিনি আপিল করেছেন। আওয়ামী লীগের সারিয়াকান্দি উপজেলা কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান মতি মনে করেন, আপিলের রায় তার পক্ষে যাবে এবং তিনি নৌকা প্রাতীক নিয়েই ভোটের মাঠে লড়াইয়ে নামবেন।

প্রায় দুই দশক আগে ১৯৯৯ সালে সারিয়াকান্দি পৌরসভা গঠন করা হয়। ২০০০ সালে প্রথম নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল হামিদ সরদার চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হন। এরপর ২০১১ সালে নির্বাচনে বিএনপি নেতা টিপু সুলতান মেয়র পদে নির্বাচিত হন। সর্বশেষ ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনে সারিয়াকান্দি উপজেলা আওয়ামী লীগের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক আলমগীর শাহী সুমন বিজয়ী হওয়ার মধ্য দিয়ে মেয়র পদটি আবারও নৌকার দখলে যায়।

তবে মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর দলের আভ্যন্তরীন নানা বিষয় নিয়ে তৎকালীন সাংসদ আব্দুল মান্নানের সঙ্গে বিরোধে জড়িয়ে পড়ায় দলের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব গ্রহণের সাড়ে ৩ বছরের মাথায় আলমগীর শাহী সুমনকে ২০১৬ সালের ৫ সেপ্টেম্বর দলীয় পদ থেকে বহিস্কার করা হয়। অবশ্য বহিস্কারের সেই সিদ্ধান্ত দলের তৎকালীন জেলা কমিটি অনুমোদন করেনি। ফলে আগামী ১৬ জানুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনে প্রার্থীতার জন্য আবেদন করে কেন্দ্র থেকে তিনি মেয়র পদের মনোনয়নও নিশ্চিত করেন। কিন্তু মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময়ের পূর্বে তার পরিবর্তে সারিয়াকান্দি উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান মতিকে মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হয়। তবে গত ২২ ডিসেম্বর যাচাই-বাছাইকালে মতিউর রহমান মতির প্রার্থীতা বাতিল করা হয। কারণ হিসেবে রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলার সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা মাহবুব আলম শাহ্ জানিয়েছেন, মতিউর রতমান মতি সারিয়াকান্দি পৌরসভার কর্মচারী ছিলেন। তিনি চলতি বছরের জুলাই মাসে অব্যাহতি নিলেও মন্ত্রণালয়ে তা গৃহিত হয়নি। সে কারণে তার প্রার্থীতা বাতিল করা হয়েছে। রিটার্নিং কর্মকর্তার ওই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল করার কথা জানিয়ে মতিউর রহমান মতি বলেন, ‘আমার প্রার্থীতা অন্যায়ভাবে বাতিল করা হয়েছে। আমি আপিলের প্রস্তুতি নিয়েছি। আশাকরি ন্যায় বিচার পাব।’

আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী দুই প্রার্থীর একজন বর্তমান মেয়র আলমগীর শাহী সুমন জানিয়েছেন, প্রথমে তাকেই দলের পক্ষ থেকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু কোন এক অজ্ঞাত কারণে তা বাতিল করা হয়। তিনি বলেন, ‘সারিয়াকান্দি পৌরসভার নাগরিকরা আমাকে আবারও মেয়র হিসেবে দেখতে চান। তাদের ইচ্ছার প্রতি সম্মান জানাতেই আমি নির্বাচনের ময়দানে আছি এবং থাকবো।’ অপর বিদ্রোহী সারিয়াকান্দি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রশিদ ফারাজী জানিয়েছেন, দীর্ঘদিন তিনি দলের জন্য অনেক কাজ করেছেন। কিন্তু কখনোই জনগণের সেবা করার সুযোগ হয়নি। তিনি বলেন, ‘জনগণের সেবা করার ইচ্ছা থেকেই আমি প্রার্থী হয়েছি’।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.