আদালতে তথ্য গোপন করে মিথ্যা হাজিরা দিতে এসে ৩ জন —

আরিফুর রহমান,মাদারীপুরঃ
প্রতারকদের প্রতারণা যেনো দানা বেঁধেছে সর্ব্বত্রই, মানুষের শেষ আ¤্রয়স্থল আইন অংগনেও প্রতারকরা প্রতারণার জাল পেতেও শেষ রক্ষা হয়নি, যেতে হয়েছে শ্রি ঘরে। সোমবার দুপরে মাদারীপুরের বিজ্ঞ চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট জনাব মামুনুর রশিদ এর আদালতে এই ঘটনা ঘটেছে।
আদালত সূত্রে জানা যায়, মাদারীপুর জেলার ডাসার থানার জি আর ৭৩/২০২০ নম্বর মামলায় ডাসার থানার দক্ষিণ ধূয়াসার গ্রামের ১.সালাম আকন, পিতাঃ মৃতঃ হাশেম আকন, ২.সাইফুল আকন, পিতাঃ সালাম আকন ও ৩. শাহিন আকন নাম উল্লেখ করে আসামীগণ বিজ্ঞ আদালতে স্বেচ্ছায় হাজির হয়ে আদালতের নিকট পূর্বশর্তে জামিন চাওয়া হয়। আসামিদের পক্ষের দাখিল কৃত পূর্বশর্তে জামিনের দরখাস্ত শুনানীকালে আদালতের সন্দেহ হওয়ায় তাদের নাম ঠিকানা জিজ্ঞাসা করা হয়।

জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে আসামী মনির খান বিজ্ঞ আদালতের নিকট স্বীকার করেন অত্র মামলার আসামী শাহিন আকনের স্থলে সে প্রোকসী দিতে এসেছে। আদালতে আরো জানায় আসামী সালাম আকন ও সাইফুল আকন তাকে (মনিরকে) শাহিন আকন সাজিয়ে আদালতে হাজিরা দিতে বলেছে এবং হাজির করেছে। মনির খান একই এলাকার বাঘরিয়া গ্রামের আরোজ খানের ছেলে।
আদালতে মামলার বিচারীক কাজে এসে পরিচয় ও তথ্য গোপন করে উক্ত মামলার আসামীরা জামিনের আবেদন করলে মাদারীপুরের বিজ্ঞ চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বেঞ্চ সহকারী ওয়াহিদুজ্জামান বাদী হয়ে দন্ডবিধি আইনের ৪১৯ ধারায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার নং ৫৪/২১ । অভিযোগের প্রেক্ষিতে আদালত আসামীদের পরীক্ষান্তে প্রতারনার বিষয়ে সত্যতা পেয়ে বিজ্ঞ আদালত আসামী মোঃ সালাম আকন, মোঃ সাইফুল আকন ও মনির খানকে জামিন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরনের নির্দেশ দেন।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.