সান্তাহার রেলওয়ে জংশন স্টেশনে বাড়েনি যাত্রী সেবার মান

আদমদীঘি (বগুড়া) প্রবিনিধি :  উত্তরবঙ্গের প্রথম শ্রেণীর বৃহত্তম বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার সান্তাহার রেলওয়ে জংশন স্টেশনটি। ত্রিমূখী রেলের সংয়োগস্থল এ জংশন স্টেশন দিয়ে প্রতি দিবারাত্রি ব্রডগেইজ ও মিটার গেইজের ৩৬টি ট্রেন চলাচল ও হাজার হাজার যাত্রী সাধারণ যাতায়াত করলেও বাড়েনি যাত্রী সেবার মান। এখনও লাগেনি কোন আধুনিকতার ছোয়া। সমস্যায় জর্জরিত রেলওয়ে জংশন স্টেশনের উন্নয়ন ও যাত্রী সেবার মান বৃদ্ধির দাবী জানিয়েছেন যাত্রী সাধারণ।

দেশের উত্তরবঙ্গের বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার প্রথম শ্রেণীর বৃহত্তম সান্তাহার রেলওয়ে জংশন স্টেশনটি ১৮৮০ সালে স্থাপিত হয় এবং এর অবকাঠামো ১৯০০ নির্মিত হয়। বৃটিশ আমলে নির্মিত প্রায় ১শ‘ ২০বছরের পুরনো অবকাঠামো জীর্ণ অবস্থায় আজও বিরাজ করছে।পশ্চিমাঞ্চল রেলেওয়ের এই বৃহত্তম জংশন স্টেশন দিয়ে প্রতি দিনরাত্রি পঞ্চগড়, সৈয়দপুর, নিলফামারী বোনারপাড়া, দিনাজপুর. ঢাকা, খুলনা, পার্বতীপুর, রংপুরসহ দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে সান্তাহার জংশন স্টেশানের উপড় দিয়ে দিবারাত্রিতে ব্রড গেইজ ও মিটার গেইজের ৩৬টি ট্রেন চলাচল করে থাকে। এছাড়া নওগাঁ, বগুড়া ও জয়পুরহাটসহ বিভিন্ন জেলার হাজার হাজার যাত্রী সাধারণ এই জংশন স্টেশনটিতে উঠানামা করেন। কিন্তু এই স্টেশনে আধুনিকতার ছোঁয়া না লাগায় বিভিন্ন সমস্যার কারনে যাত্রী সাধারণকে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

বিশেষ করে যাত্রীদের পানীয় জলের তীব্র সংকট রয়েছে। ১ ও ২ নম্বর প্লাটফরমে একটি পানির টিউবওয়েল থাকলেও সেটিও বন্ধ রয়েছে দীর্ঘদিন যাবত। এছাড়া ৩, ৪ ও ৫ নম্বর প্লাটফরম মিলে ১টি পানির ট্যাপ রয়েছে তাতেও অনেক সময় পানি পাওয়া যায়না। অপরদিকে প্লাটফরম গুলোতে পুরো টিনসেড না থাকায় যাত্রী সাধারনকে রোদের মধ্যে ও বৃষ্টিতে ভিজে ট্রেনে উঠানামা কারতে হয়। টিনসেড গুলোর বিভিন্ন স্থানে মরিচা ধরে নষ্ট হওয়ার কারণে একটু বৃষ্টি হলেই পানি পড়ে। জনগুরুপূর্ণ স্টেশনের আয় বৃদ্ধি হলেও অবকাঠামো ও যাত্রী সেবার মান বৃদ্ধি পায়নি। প্রয়োজনীয় রক্ষনাবেক্ষণ ও জনবল সংকটের কারণে বিশ্রামাগারে বসার সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে ট্রেন যাত্রীরা। যাত্রীদের জন্য প্রথম শ্রেণীর ১টি, শোভন শ্রেণীর ১টি ও দ্বিতীয় শ্রেণীর ১টি বিশ্রামাগার থাকলেও প্রায় সময় থাকে অপরিচ্ছন্ন। সান্তাহার স্টেশন মাস্টার হাবিবুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, জনবহুল এই জংশনে যাত্রীদের ওঠানামার জন্য ৫টি প্লাটফর্ম বর্ধিত করাসহ পুরো প্লাটফর্মে টিনসেট দেয়ার জন্য রেলওয়ে উর্দ্ধতন কতৃপক্ষের নিকট লিখিত আবেদন করা হয়েছে।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.