মধুখালীতে একজন ভুমিহীন মুক্তিযোদ্ধার আত্মনাদ

১০

শাহজাহান হেলাল.মধুখালী (ফরিদপুর) প্রতিনিধি ঃ
বীরমুক্তিযোদ্ধা মোঃ শাহজাহান আলী মোল্যা যার মুক্তি বার্তা নং ০১৮০৪০০০৫,গেজেট নং ১৮২৫ এবং ভারতীয় তালিকা ৪৭৫৩। যুদ্ধ পরবর্তী মধুখালী উপজেলার গাজনা ইউনিয়নের মথুরাপুর মৌজার সাবেক ৩৫৭৬ নম্বর দাগের ১ নং খাস খতিয়ান ভুক্ত ৩৬ শতাংশ জমির জন্য রাষ্টের কাছে আবেদন করেন। তাঁর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ২১ জানুয়ারী ১৯৮৯ খ্রিঃ তারিখে ৯৯ বছরের কবলোতি দলিল সম্পাদন করেন রাষ্টের পক্ষে জেলা প্রশাসক ভুমি। সে মোতাবেক জমির দলিল তাঁকে হস্তান্তর করা হয়। ৯/১০ বছর পরে তিনি জানতে পারেন রেজিস্ট্রিকৃত দলিল বাতিল করা হয়েছে। কি কারনে বাতিল হয়েছে আজও তিনি জানতে পারেন নাই। বাতিলের কারন না জানতে পারলেও ভোগ দখলে থাকা জমির জন্য পূনঃ আবেদন করেন জেলা প্রশাসক বরাবরে।

তাঁর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসক (ভূমি) সরোজমিনে তদন্তে আসেন। সরোজমিনে তদন্তে সাপেক্ষে জেলা প্রশাসক (ভূমি) ৩৬ শতাংশ জমির মধ্যে ৩ লক্ষ ৪হাজার ৩২৮টাকার বিনিময়ে ৮ শতাংশ জমির মূল্য নির্ধারন করেন। ফরিদপুর জেলা প্রশাসক ১৭ আগস্ট ২০১৭ খ্রিঃ তারিখে নির্ধারিত জমির মূল্য নির্ধারন করে অনুমোদনের জন্য ভূমি মন্ত্রণালয়ে প্রেরন করেন। বীরমুক্তিযোদ্ধা মোঃ শাহজাহান আলী মোল্যা জানান বহুবার ভূমি মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগ করে কোন উত্তর খুজে পান নাই। পরবর্তীতে জানতে পারেন তাকে ঐ ৮শতাংশ জমিও তিনি পাবেন না।
বীরমুক্তিযোদ্ধা মোঃ শাহজাহান আলী মোল্যা অশ্র“ ভেজা মনের দুঃখ প্রকাশ করে বলেন একজন প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা হয়ে আজ আমি ভূমিহীন। কোন ইশারায় পরিবার নিয়ে বসবাস করার মাথা গোজার ঠাই টুকু চলে যাওয়ার পথে। যদি চলে যায় আমার বসবাসের এই ভুমি টুকু তাহলে দাঁড়াবার আর জায়গা থাকবে না। কি হবে আমার পরিবারের? কোথায় দাঁড়াবে সে রকম কোন অবস্থা নাই। প্রধান মন্ত্রী মানবদরী মমতাময়ী জননী জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে আকুল আবেদন একজন ভূমিহীন মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে মানবিক সহায়তা করেন ।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.