কুড়িগ্রামে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে মাছ ও গাছের সাথে এ কেমন শত্রুতা?

মোঃবুলবুল ইসলাম,কুড়িগ্রাম সদর প্রতিনিধিঃ
কুুড়িগ্রাম জেলার সদর উপজেলার ভোগডাঙ্গা ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের (আবিরের ভিটা) আঃ হাকিম মিয়ার বাড়ির সামনে পুকুরে কীটনাশক (বিষ) দিয়ে প্রায় ৩লক্ষাধিক টাকার মাছ মেরে ফেলে ও ৪শতাধিক ইউক্যালিপটাস, জাম, আমগাছ ও শতাধিক সুপারির চারা ভেঙ্গে ফেলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। রবিবার (২৪ জানুয়ারি) রাতে হাকিম মিয়ার বাড়ীর পাশে এ ঘটনা ঘটে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, আঃ হাকিম মিয়া এর সাথে একই গ্রামের আব্বাস ও লালচাঁদ এর সাথে দীর্ঘদিন ধরে জমি সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। এ নিয়ে ৪/৫ বার শালিস বৈঠকের মাধ্যমে মীমাংসা করলেও মানতেছে না আব্বাস ও লালচাঁদের পক্ষের লোকজন। ঘটনার দিন একই গ্রামের আব্বাস, লালচাঁদ ও তার সহযোগীরা রাতের আধারে আঃ হাকিম মিয়ার বাড়ীর সামনের পুকুরে কীটনাশক (বিষ) দিয়ে প্রায় ৩লক্ষাধিক টাকার মাছ মেরে ফেলে ও ৪শতাধিক ইউক্যালিপটাস, জাম, আমগাছ ও শতাধিক সুপারির চারা ভেঙ্গে ফেলার অভিযোগ উঠেছে।

এ ব্যাপারে আঃ হাকিম মিয়া জানান, আমার ক্রয় কৃত জমিতে পুকুর দিয়ে দীর্ঘদিন যাবত মাছ চাষ করতেছি ও গাছপালাসহ বিভিন্ন ফসল আবাদ করতেছি। পার্শ্ববর্তী আব্বাস ও লালচাঁদ গংরা শালিস বৈঠক অমান্য করে বারবার আমার বিভিন্ন ক্ষতি করে আচ্ছে।

একই গ্রামের মফিজুল (৪৭) ও জোবেদা (৪২) জানান, কয়দিন আগে হাইবুল, মনছের সহ কয় জন আসি কয় তোমার বাড়ি/ গাছ ফুকে উরে দিব। তারা আরও জানান, হামরা গরীব মানুষ বলে এর বিচার কি পাবো না ? বিষয়টি নিয়ে উক্ত ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ সাইদুল ইসলাম জানান, এর আগে কয়েক বার শালিসে বসলে আব্বাস ও লালচাঁদ গংরা শালিস বৈঠক অমান্য করে। তাই আঃ হাকিম গংদের আইনি ব্যবস্থার জন্য বলা হয়েছে। এ বিষয় কুড়িগ্রাম সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) খান মোঃ শাহরিয়ার জানান, থানায় অভিযোগ পাওয়া গেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.