1. zahersherpur@gmail.com : abu zaher Zaher : abu zaher Zaher
  2. Bijoybangla2008@gmail.com : bijoybangla :
  3. harezalbaki@gmail.com : Harez :
  4. mannansherpur81@gmail.com : mannan :
  5. wadut88@gmail.com : wadut :
ভূঞাপুরে মরা বাঁশ ও গাছের মধ্যে দিয়ে বিদ্যুতের লাইন ।। প্রানহানীর আশংকা - বিজয় বাংলা
রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ০৬:১৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
নবীনগরে সম্প্রীতি সভা ও মানববন্ধন টাঙ্গাইলে ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে এক প্রবাসীর আত্মহত্যা নন্দীগ্রামে কৃষকলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত খাবারের অভাব আর হবে না: প্রধানমন্ত্রী স্বামীর বাইক থেকে পড়ে প্রাণ গেল স্কুলশিক্ষিকার কাল থেকে শুরু হচ্ছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ, দেখা যাবে যেসব চ্যানেলে পূজার সাজে সাজলেন মিথিলা ঘোড়ার খামারে বিয়ে বিল গেটস কন্যার! ১৮ অঞ্চলে বইছে তাপপ্রবাহ বগুড়ায় যমুনায় ডুবে মেডিকেল ছাত্রের মৃত্যু তাপমাত্রা হ্রাস পেতে পারে নিত্যপণ্যে ক্রেতার হাঁসফাঁস ।। দাম বাড়তে বাড়তে এখন লাগামহীন প্রসঙ্গ : ধর্ম যার যার, উৎসব সবার দুর্দান্ত হেডে মেসিদের দারুণ জয় বোরকা পরে শুটিং স্পটে পরীমনি শেরপুরে বিভিন্ন পূজামণ্ডপে অনুদান প্রদান আয়ারল্যান্ডের কাছে ৩৩ রানে হারলো বাংলাদেশ পেঁয়াজ-চিনির আমদানিতে শুল্ক কমল কাজিপুরে এমপি তানভীর শাকিল জয়ের বিভিন্ন পূঁজা মন্ডপ পরিদর্শন নন্দীগ্রামে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে বিএনপি নেতার ছোট ভাইয়ের মৃত্যু

ভূঞাপুরে মরা বাঁশ ও গাছের মধ্যে দিয়ে বিদ্যুতের লাইন ।। প্রানহানীর আশংকা

  • সর্বশেষ সংস্করণ : শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৬৫ বার দেখা হয়েছে
।। রফিকুল ইসলাম রবি, ভূঞাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি ।।
২০১৭ সালের ১ মার্চ টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলাকে শতভাগ বিদ্যুতায়ন ঘোষনা করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উৎসবের আমেজ বিরাজ করে ভূঞাপুরবাসীর মাঝে। এছাড়াও স্থানীয় সংসদ সদস্য তানভীর হাসান ছোট মনিরের প্রতিশ্রুতি মোতাবেক দূর্গম চরাঞ্চলে পৌঁছে যাচ্ছে বিদ্যুৎ। এতে আশার আলো দেখছেন চরাঞ্চলবাসী। হাসির ঝিলিক দেখা গেছে অন্ধকারে থাকা লোকজনের মাঝে। সূত্র জানায়, ২০১৭ সালে ভূঞাপুরে শতভাগ বিদ্যুতায়নের জন্য বরাদ্দ দেয়া হয় ১২৩.৯০ কোটি টাকা। বরাদ্দে ৮২৬ কিলোমিটার নতুন লাইন নির্মাণের বিষয়টি উল্লেখ্য করা হয়।
এছাড়াও প্রতিবছর লাইন সংস্কার, খুঁটি, তার, ট্রান্সফরমারসহ বিভিন্ন বৈদ্যুতিক মালামালের জন্য বরাদ্দ আসে কোটি কোটি টাকা বরাদ্দ আসে। তারপরও শতভাগ বিদ্যুতায়ন ঘোষনার সাড়ে ৪ বছর অতিক্রম হলেও এর সুবিধা পাচ্ছে না সাধারন মানুষ। খাম্বা বাণিজ্য, লাইন বাণিজ্য, ট্রান্সফরমার বাণিজ্য যেন নিত্তনৈমিত্তিক বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে ভূঞাপুর বিদ্যুৎ বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগের কর্মকর্তা কর্মচারীদের। টাকা ছাড়া যেন কোন কিছুই হয়না এ অফিসে। অথচ বিনামূল্যে এসব সুবিধা পাওয়ার কথা গ্রাহকদের। এছাড়াও ভুতুড়ে বিল আর লোডশেডিংয়ের বাড়তি বোঝাতো রয়েছেই।
এদিকে শতভাগ বিদ্যুতায়িত উপজেলায় এখনো মরা বাঁশ ও গাছের মধ্যে দিয়ে বিদ্যুতের লাইন নেয়া হয়েছে। অনেক জায়গায় তার মাটিতে ছুঁই ছুঁই। বাঁশ দিয়ে কোন রকম টিকিয়ে রাখা হয়েছে। বিভিন্ন জায়গায় ঘটছে প্রাণহানীর ঘটনা তারপরও টনক নড়ছেনা কর্তৃপক্ষের। দেখেও যেন না দেখার ভান করে চলছে ভূঞাপুর বিদ্যুৎ বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগ। উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে এ রকম চিত্র দেখা গেছে অহরহ। চেংটাপাড়া গ্রামের আলাউদ্দিন বলেন, তার বাড়ির সামনে দিয়ে জরাজীর্ণ একটি বিদ্যুতের লাইন গেছে। এ লাইনে দুটি গরু ও পুকুরের ১৫ হাজার টাকার মাছ মারা যায়। লাইনটি সংস্কারের জন্য ৭ মাস আগে ভূঞাপুর বিদ্যুৎ অফিসে আবেদন করা হলেও এখন পর্যন্ত লাইনটি সেই অবস্থাতেই রয়ে গেছে।
গোবিন্দাসী গ্রামের আবুল কালাম জানান, গোবিন্দাসী স্কুল রোডে লাইনটি জরাজীর্ণ। মাথা ছুঁই ছুঁই। মরা বাঁশ দিয়ে লাইন টিকিয়ে রাখা হয়েছে। দড়ি আর ছেঁড়া কাপড় দিয়ে তার বেঁধে রাখা হয়েছে। যে কোন মুহুর্তে ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা। বার বার বিদ্যুৎ অফিসে জানানো হলেও কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করছে না তারা। শুধু আলাউদ্দিন ও কালাম নয়, এরকম অনেক অভিযোগ শত শত গ্রাহকের।
এ বিষয়ে ভূঞাপুর বিদ্যুৎ বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মেহেদী হাসান ভূঁইয়ার অফিসশিয়াল (০১৭৫৫-৫৮১৩৮৯) নাম্বারে যোগাযোগের চেষ্টা করা করা মোবাইল নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যায়।

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
© সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত © ২০২১ বিজয় বাংলা
Theme Download From ThemesBazar.Com
RSS
Follow by Email