1. zahersherpur@gmail.com : abu zaher Zaher : abu zaher Zaher
  2. Bijoybangla2008@gmail.com : bijoybangla :
  3. harezalbaki@gmail.com : Harez :
  4. mannansherpur81@gmail.com : mannan :
  5. wadut88@gmail.com : wadut :
৯ বছর পর জায়গা বদলাবে চাঁদ, ভয়াবহ বন্যা দেখবে পৃথিবী! - বিজয় বাংলা
রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ০৬:০১ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
কুড়িগ্রামে শিশু শিক্ষার্থী মিষ্টিকে বাচাঁতে বাবা ও মায়ের সাহায্যের আবেদন রাতের আঁধারে অসহায়ের মানুষের পাশ্বে মোহাম্মদ নাসিম স্মৃতি সংসদ কাজিপুর বোনকে ধর্ষনের চেষ্টা, লম্পট ভাই গ্রেফতার সুবর্ণচরে যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূকে বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগ দেওয়ানগঞ্জে কঠোর ভাবে লকডাউন বাস্তবায়ন করছে উপজেলা প্রশাসন শিবগঞ্জে কুরবানী ঈদে ১২টি গরু বিক্রির টাকা চুরির ঘটনায় আটক ১ জাপান থেকে ঢাকায় পৌঁছেছে অ্যাস্ট্রাজেনেকার ২ লাখ ৪৫ হাজার টিকা বন্দুকের নল থুতনিতে লাগিয়ে সেলফি, উড়ে গেলো মাথা-মগজ বাগেরহাটে জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতির সুস্থ্যতা কামনায় দোয়া অনুষ্ঠিত বগুড়ায় সাড়ে ৩০ কেজি ওজনের বিষ্ণুমূর্তিসহ গ্রেফতার ১ দেশে হঠাৎ বেড়েছে করোনার সংক্রমণ, মৃত্যু ১৯ হাজার ছাড়ালো ৭২ ঘণ্টার মধ্যেই বৃষ্টিতে নাকাল হবে দেশ শেরপুরে অভিনব কায়দায় ট্রাক ছিনতাই ৫০ হাজার শিক্ষক নিয়োগে নতুন গণবিজ্ঞপ্তি আসছে বগুড়ার সারিয়াকান্দি পরিচয়বিহীন তরুণী উদ্ধার কয়রায় মুজিব বর্ষের ২৫ টি আশ্রয় কেন্দ্রে নারিকেলের চারা বিতরণ শেরপুরে স্বাস্থ্যবিধি ও সরকারি নির্দেশনা অমান্য করায় জরিমানা শেরপুরে প্রধানমন্ত্রীর উপহার আশ্রয়ণ প্রকল্প স্বপ্নের ঠিকানায় খুশির কোরবানির ঈদ বগুড়ায় করোনায় আক্রান্ত ও উপসর্গে মৃত্যু ২৪ মেধাবীদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী হওয়ার আহবান – এমপি বাবু

৯ বছর পর জায়গা বদলাবে চাঁদ, ভয়াবহ বন্যা দেখবে পৃথিবী!

  • সর্বশেষ সংস্করণ : মঙ্গলবার, ১৩ জুলাই, ২০২১
  • ৫৩ বার দেখা হয়েছে

প্রতিনিয়ত বিশ্বজুড়ে আবহাওয়ার পরিবর্তন হচ্ছে। ঘূর্ণিঝড়ের সংখ্যা ও তীব্রতা বেড়েছে। আমেরিকা সম্প্রতি একাধিক ঘূর্ণিঝড়ের মুখোমুখি হয়েছে। সমুদ্রপৃষ্ঠের উত্থান এবং উচ্চ জোয়ার চাঁদের সাথে সম্পর্কিত। বিজ্ঞানীরা বলছেন, যদি চাঁদ কিছুটা অবস্থান পরিবর্তন করে তবে সারাবিশ্বে ভয়াবহ বন্যা দেখা দেবে।
উচ্চ জোয়ারের ফলে সৃষ্ট বন্যাকে নিউইসান্স বন্যা বলা হয়। এমন সময়ে, সমুদ্রের তরঙ্গগুলো তাদের গড় উচ্চতা থেকে ২ ফুট বেশি উত্থিত হয়। যার ফলে শহরগুলোতে জল ঢুকতে থাকে। ঠিক যেমন বর্ষার সময় মুম্বাইয়ের অবস্থা আরও খারাপ হয়ে যায়। এ কারণে পরিস্থিতি বিশৃঙ্খল হয়ে পড়ে।

Alal Group

জাতীয় মহাসাগর ও বায়ুমণ্ডলীয় অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের মতে, আমেরিকাতে উচ্চ জোয়ারের কারণে ২০১৯ সালে ৬০০ বার বন্যা হয়েছিল। কিন্তু নাসার এক নতুন গবেষণা অনুসারে, ২০৩০ সালের মধ্যে আমেরিকা-সহ বিশ্বে অনেক জায়গায় নিউইসান্স বন্যা দেখা দেবে। ফলে উচ্চ জোয়ারের সময় আসা তরঙ্গগুলোর উচ্চতা প্রায় ৩ থেকে ৪ গুণ বেশি হবে।
নাসার এই সমীক্ষাটি গত মাসে নেচার ক্লাইমেট চেঞ্জে প্রকাশিত হয়েছিল। তবে নাসা এখন সতর্ক করেছে যে ২০৩০ সালের মধ্যে নিউইসান্স বন্যা অনেক বেড়ে যাবে। এগুলো বছরে একবার বা দু’বার আসবে না, বরং প্রতি মাসে আসবে। কারণ যখনই চাঁদের কক্ষপথে সামান্য পরিবর্তন হবে তখনই এই বন্যা আরও ক্ষতিকারক হয়ে উঠবে। উপকূলীয় অঞ্চলে এই বন্যা প্রতি মাসে দু-তিনবার আসবে।
চাঁদের অবস্থান পরিবর্তনের সাথে সাথে উপকূলীয় অঞ্চলে নিউইসান্স বন্যা সেখানে বাসকারী মানুষের পক্ষে বিপদজনক হয়ে উঠবে। এটি এড়াতে বিশ্বজুড়ে সরকারগুলোকে পরিকল্পনা করতে হবে। হাওয়াই বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক ফিল থম্পসন এক বিবৃতিতে বলেছেন, দীর্ঘমেয়াদী জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে এটি ঘটবে। এর কারণে পৃথিবীতে অনেক সমস্যার সৃষ্টি হবে।

Alal Group

ফিল থম্পসন বলেছেন, মাসে যদি এইরকম বন্যা ১০-১৫ বার ঘটে তবে মানুষের কাজ কারবার বন্ধ হয়ে যাবে। মানুষের আয় ব্যাহত হবে। চাকরি আর থাকবে না। অবিচ্ছিন্ন জলের কারণে মশা বাহিত রোগগুলোও বৃদ্ধি পাবে। চাঁদের কারণে পৃথিবীর উপকূলীয় অঞ্চলে বন্যার পরিমাণ ও সময় বাড়বে। গ্লোবাল ওয়ার্মিংয়ের কারণে বিশ্বজুড়ে বরফ এবং হিমবাহ গলে যাচ্ছে। এর কারণে সমুদ্রের স্তর দ্রুত বৃদ্ধি পাবে।
জাতীয় মহাসাগর ও বায়ুমণ্ডলীয় অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের দেওয়া তথ্যানুসারে, ১৮৮০ সাল থেকে সমুদ্রের জলস্তর ৮ থেকে ৯ ইঞ্চি বৃদ্ধি পেয়েছে। এই উচ্চতাগুলোর এক তৃতীয়াংশ গত ২৫ বছরে বৃদ্ধি পেয়েছে। ২১০০ সাল নাগাদ, সমুদ্রের স্তর ১২ ইঞ্চি থেকে ৮.২ ফুট পর্যন্ত উঠতে পারে। এটি রোধ করতে গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমন হ্রাস করতে হবে। তবে কয়েক দশক লাগবে এই কাজ শেষ করতে, যা সহজ নয়।
জাতীয় মহাসাগর ও বায়ুমণ্ডলীয় অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের এক নতুন সমীক্ষা অনুসারে, চাঁদ সর্বদা সমুদ্রের তরঙ্গকে প্রভাবিত করে আসছে। চাঁদের টান এবং চাপ উভয়ই বছরের পর বছর ভারসাম্যপূর্ণ রয়েছে। চাঁদ যদি তার কক্ষপথের অবস্থান কিছুটা পরিবর্তন করে, তবে এটি পৃথিবীর উপকূলীয় অনেক অঞ্চলকে প্লাবিত করবে। কারণ চাঁদ ১৮.৬ বছরে তার জায়গায় সামান্য পরিবর্তন করে। এই সময়ের মধ্যে অর্ধেক সময়, চাঁদ পৃথিবীর ঢেউকে দমন করে। তবে অর্ধেক চক্রের পর চাঁদ তরঙ্গকে তীব্র করে তোলে। তাদের উচ্চতা বৃদ্ধি করে, যা বিপজ্জনক।
নাসা জানিয়েছে যে এখন চাঁদের ১৮.৬ বছরের পূর্ণচক্রের অর্ধেকটি শুরু হতে চলেছে, যা পৃথিবীর তরঙ্গকে ত্বরান্বিত করবে। ২০৩০ সালে এটি ঘটবে। ততক্ষণে বৈশ্বিক সমুদ্রের স্তরটি উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পাবে। এই কারণে বিশ্বের অনেক দেশে নিউইসান্স বন্যার সমস্যা দেখা দেবে। আমেরিকাতে এর চেয়ে আরও বেশি সমস্যা থাকবে। কারণ সে দেশে উপকূলীয় এলাকায় অনেক পর্যটনস্থল রয়েছে।
নাসা বলেছে, জলবায়ু চক্রের এল নিনোর মতো ঘটনাও বন্যার দিকে পরিচালিত করবে। নাসার জেট প্রোপালশন ল্যাবরেটরির বিজ্ঞানী বেন হ্যামলিংটন বলেছেন- এই সমস্ত ঘটনা প্রতি মাসে ঘটবে। এটিও হতে পারে যে বছরের এক অংশে এত বন্যা হবে যে সারা বছর আপনার সমস্যা থাকবে। সূত্র: লাইভ সায়েন্স

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
© সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত © ২০২১ বিজয় বাংলা
Theme Download From ThemesBazar.Com
RSS
Follow by Email