রাতে দরজা খুলে রেখেছিলেন মা, ছেলে ঠিকই এলো তবে লাশ হয়ে

৪৩

বিজয় বাংলা বিডি ।।  রাত ১০ টার দিকে কথা হয় ছেলের সাথে, মাকে জানায় বাড়ি এসে ভাত খাবে। মা দরজা খুলে খাবার নিয়ে বসে আছেন। সময় রাত সাড়ে ১০ টা। স্থানীয় কিছু লোকজন তার বাড়িতে ছুটে এলো। তারা বলছেন, তোমার ছেলেকে কারা জানি মেরে ফেলেছে। মঙ্গলবার রাতে বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলার গয়নাকুড়ি গ্রামে পারভেজ মোশারফ বাপ্পি (১৫) নামের এক কিশোরকে গলাকেটে হত্যা করা হয়। এ সময় বাপ্পির সাথে থাকা সাহেব আলী নামে আরেক কিশোরকেও হত্যা চেষ্টা করে দূর্বৃত্তরা। বাপ্পি ও সাহেব আলী দুজনই গয়নাকুড়ি গ্রামের বাসিন্দা।

তবে, সাহেব আলী কোনোমতে পালিয়ে এসে জীবন রক্ষা করে। বর্তমানে ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত অবস্থায় বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে সাহেব আলী। কেন বাপ্পিকে হত্যা করা হলো এ বিষয়ে কিছুই বলতে পারছেন না বাপ্পির বাবা মোকশেদ আলী ও মা শাহনাজ পারভীন। মোকশেদ আলী পেশায় ট্রাকচালক। বুধবার দুপুরে মোকশেদ বলেন, ‘রাত ১১ টার পরে আমি ছেলে হত্যার খবর পাই। যখন বাড়িতে আসি তখন বাজে রাত ১ টা। আমার ছেলেকে কেন হত্যা করা হয়েছে, এটা আমার জানা নেই। আমার সঙ্গে ব্যক্তিগত কারও দ্বন্দ্ব নেই। আমাকে পুলিশ থানায় ডেকেছে। এখন থানায় যাবো, মামলা করবো।’

তিনি বলেন, ‘শোনা যাচ্ছে কয়েকজন বোরকা পড়ে এসে আমার ছেলেকে হত্যা করেছে। আহত সাহেব আলীও বলছে বোরকা পড়া তিনজন তাদের ওপর হামলা চালায়।’ বাপ্পির মা শাহনাজ পারভীন বলেন, ‘আমার ছেলের জন্য রাতে আমি দরজা খুলে রেখে ভাত নিয়ে বসে ছিলাম। ছেলে এসে ভাত খাবে।’
তিনি বলেন, সাহেব আলী ও আমার ছেলে একসঙ্গে সন্ধ্যায় বের হয়। রাত ১০ টার দিকে বাপ্পি আমাকে মোবইলে জানায়, সে বাড়ি আসবে এখনি। শাজাহানপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আব্দুর রাজ্জাক বলেন, চিকিৎসাধীন থাকা সাহেব আলী বলছে বোরকা পড়ে তাদের ওপর হামলা চালানো হয়। তবে তার ভুলও হতে পারে, শীতের কারণে হয়ত হামলাকারীদের শরীরে চাদরও থাকতে পারে। সাবেহ আলীও গুরুতর আহত, তার অবস্থাও ভালো না। তদন্তে সব জানা যাবে। স্থানীয় ইউপি সদস্য তোতা মিয়া বলছেন, বাপ্পিকে হত্যার কোনো কারণই জানা যাচ্ছে না। তবে তাদের ওপর বোরকা পড়ে হামলা চালানো হয়েছে বলে শোনা যাচ্ছে। এসআই আব্দুর রাজ্জাক বলেন, এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় এখনো কিছু জানা যায়নি। অপরাধীদের চিহ্নিত ও হত্যার কারণ জানার চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। মামলার প্রস্তুতি চলছে।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.