৩ মাস পর পিকআপ উদ্ধার ও আন্তঃজেলা ডাকাত দলের ২ সদস্য গ্রেফতার

শেরপুর সার্কেল মোঃ গাজিউর রহমান এর নেতৃত্বে

0 80
আব্দুল ওয়াদুদ :  
বগুড়ার শেরপুর থানার দশমাইল এলাকায় ঢাকা-বগুড়া মহাসড়ক থেকে গত ১৮ আগস্ট দিবাগত রাতে ডাকাতি হওয়া পিকআপ গাড়ী ও  ডাকাতদের নিকট থেকে ডাকাতি হওয়া একটি অপপো মোবাইল গত (১৮ নভেম্বর) বিকালে বগুড়ার সোনাতলার বালুয়া নামক এলাকার একটি পেট্রোল পাম্প থেকে উদ্ধার করেছে শেরপুর থানা পুলিশ। এবং ভোরে আন্তঃজেলা ডাকাত দলের ২ জন ডাকাতকে প্রযুক্তি ও সোর্সের মাধ্যমে গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জ থানার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতারকৃতরা হলোঃ গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জ থানার কোন্দারপাড়া গ্রামের  মোঃ রফিকুল ইসলামের ছেলে মোঃ রাজু ইসলাম (২২) এবং চাঁদপুর সিংগা গ্রামের মৃত ফুল মামুদ এর ছেলে মোঃ গোলজার রহমান (৫০)।
বৃহস্পতিবার (১৯ নভেম্বর) দুপুরে তাদেরকে আদালতে প্রেরন করে।
উল্লেখ্য যে, গত ১৮ আগস্ট নারায়গঞ্জ জেলার সোনারগাঁও থানার গোয়ালদী গ্রামের জনৈক রহিম উদ্দিনের পুত্র নাঈম হোসেন, তার চাচা শাজাহান, ভাই ইমন ও নানা মোঃ জামাল উদ্দিন কুড়িগ্রাম জেলার যাত্রাপুর হাটে গিয়ে মোট ৫ লক্ষ ২০ হাজার টাকায় ছোট-বড় ১১টি গরু ক্রয় করেন। এরপর তারা বাবলু ড্রাইভার এর মাধ্যমে একখানা পিকআপ গাড়ী (ঢাকা মেট্রো-ন-১৩-৪৯৮১ ) ভাড়া করে সন্ধ্যার পর নিজ এলাকার উদ্দেশ্যে রওনা করে। পথিমধ্যে রাত্রী অনুমান সাড়ে ৩টায় বগুড়া জেলার শেরপুর থানাধীন দশমাইল স্ট্যান্ডের পাশ্ববর্তী আনোয়ারা নর্থ বেঙ্গল ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এর ২০ গজ দক্ষিনে বগুড়া-ঢাকা মহাসড়কে পৌঁছলে পিছন দিক থেকে একটি অজ্ঞাতনামা মাজদা পিকআপ গাড়ী তাদের গরু বোঝাই পিকআপ গাড়ীকে বেরিকেড দেয়। মাজদা গাড়ী থেকে অজ্ঞাতনামা ডাকাতরা নেমে সবাইকে দেশীয় অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে এলোপাথারিভাবে মারপিট শুরু করে এবং একপর্যায়ে সকলকে ভয়ভীতি দেখিয়ে ডাকাতরা মাজদা পিকআপ গাড়ীতে উঠতে বলে। অজ্ঞাতনামা ডাকাতদের মধ্যে ০১ জন গরু বোঝাই পিকআপ গাড়ীর ড্রাইভারের আসনে বসে গরু বোঝাই পিকআপটি ডাকাতি করে নিয়ে যায় এবং ভোর সাড়ে ৪টায় বগুড়া সদর থানাধীন সাবগ্রাম নামক স্থানের বাইপাসে গরুর ব্যাপারী ও গাড়ীর ড্রাইভার হেলপারদের একে একে ভিন্ন ভিন্ন স্থানে গাড়ী থেকে ফেলে দিয়ে চলে যায়।
এ বিষয়ে গত ৩০ নভেম্বর/২০ শেরপুর থানায় মামলা দায়ের করে। শেরপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ গাজিউর রহমান প্রযুক্তি ও সোর্সের মাধ্যমে ডাকাতি মামলাটি ডিটেক্ট করেন এবং ডাকাতদের সনাক্ত করেন। গত ১৮ নভেম্বর ২০২০ ভোরে পুলিশ সুপার বগুড়া মোঃ আলী আশরাফ ভূঞা বিপিএম-বার এর নির্দেশনায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, শেরপুর সার্কেল মোঃ গাজিউর রহমান এর নেতৃত্বে শেরপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোঃ আবুল কালাম আজাদ, মামলার তদন্তকারী অফিসার এসআই মোঃ আলহাজ উদ্দিন, বগুড়া জেলা গোয়েন্দা শাখার পুলিশ পরিদর্শক মোঃ এমরান মাহমুদ তুহিন, এসআই মোঃ জুলহাজ উদ্দিন বিপিএম, পিপিএমগণসহ একটি চৌকস পুলিশ টিম গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জ থানা এলাকার বিভিন্ন জায়গায় অভিযান পরিচালনা করে। এ সময় চাঁদপাড়া গ্রাম থেকে রাজু ইসলামকে এবং একই থানার চাঁদপুর সিংগা গ্রাম থেকে মোঃ গোলজার রহমানকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকালে রাজু ইসলামের হেফাজত থেকে ডাকাতি হওয়া পিকআপ গাড়ীর হেলপারের একটি অপপো মোবাইল ফোন উদ্ধার হয়। ডাকাত রাজুকে জিজ্ঞাসাবাদকালে তার স্বীকারোক্তি ও দেখানো মতে গতকাল বিকাল বেলা বগুড়ার সোনাতলার মেসার্স বালুয়া হাট ফিলিং স্টেশন থেকে লুন্ঠিত পিকআপটি উদ্ধার করা হয়। অন্যান্য ডাকাতদের সনাক্ত করণ ও গরুগুলি উদ্ধারের জন্য গ্রেফতারকৃত ডাকাতদ্বয়ের ১০ দিনের পুলিশ রিমান্ডের আবেদন করা হচ্ছে।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না।