মাইনাস ৭০ ডিগ্রি তাপমাত্রায় রাখতে হবে ফাইজারের টিকা

0 7

বিশ্বব্যাপী করোনার তাণ্ডব চলাবস্থায় স্বস্তির বার্তা দিয়েছে মার্কিন কোম্পানি ফাইজার ও জার্মান কোম্পানি বায়োএনটেক। করোনা থেকে ৯০ শতাংশ পর্যন্ত সুরক্ষার দাবি করেছে এ দুটি প্রতিষ্ঠান। সোমবার টিকাটির প্রকাশিত অন্তর্বর্তী ফলে এ তথ্য জানা গেছে।করোনাভাইরাস মহামারির শুরু থেকেই ফাইজার ও বায়োএনটেক নামের দুটি প্রতিষ্ঠান টিকা তৈরির চেষ্টা করে আসছিলো।

তবে তাদের টিকাটি এখনই স্থানীয় ওষুধের দোকানে মিলবে না। এখনো তাদের টিকাটি নিরাপদ কি না, তার ফল জানার অপেক্ষায় আছে প্রতিষ্ঠান দুটি। আর চলতি মাসের শেষের দিকে সেটা জানা যেতে পারে।

ফাইজারের টিকা তৈরিতে এমআরএনএ–এর মতো যে নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে, তা ভাইরাসের বিরুদ্ধে মানুষের প্রতিরোধী শক্তিকে সক্রিয় করে। টিকাটি সংরক্ষণে মাইনাস ৭০ ডিগ্রি সেলসিয়াস (মাইনাস ৯৪ ডিগ্রি ফারেনহাইট) তাপমাত্রার প্রয়োজন পড়ে।
জনস হপকিনস সেন্টার ফর হেলথ সিকিউরিটির জ্যেষ্ঠ বিশেষজ্ঞ আমেশ আদালজা বলেন, টিকা সরবরাহের ক্ষেত্রে সবচেয়ে চ্যালেঞ্জিং হচ্ছে শীতলীকরণ চেইন। অনেক বড় শহরের হাসপাতালেও এত কম তাপমাত্রায় টিকা সংরক্ষণের সুবিধা নেই।

ফাইজারের মুখপাত্র কিম বেনকা বলেন, প্রতিষ্ঠানটি তাদের সরবরাহ কেন্দ্র থেকে টিকা পৌঁছাতে যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানি, বেলজিয়ামসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সরকারের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করছে। বিস্তারিত পরিকল্পনার মধ্যে রয়েছে ১০ দিনের মধ্যে শুকনো বরফ ব্যবহার করে আকাশপথ বা সড়কপথে টিকা পরিবহন করা।
এদিকে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ অ্যান্টনি ফাউসি টিকার সুখবরকে স্বাগত জানিয়েছেন। তিনি ফাইজারের টিকা প্রস্তুতের খবরকে বড় খবর হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, এ বছরের মধ্যেই যুক্তরাষ্ট্রে টিকা দেয়া সম্ভব হবে।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না।