নন্দীগ্রামে মাস্ক এখন থুতনির নিচে আর হাতে!

0 6

নন্দীগ্রাম (বগুড়া) প্রতিনিধি :
মহামারি করোনা নিয়ন্ত্রণে সরকারিভাবে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক বলে ঘোষণা দেওয়া হলেও তা অমান্য করছেন অনেকে। বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলায় গ্রামগঞ্জের হাট-বাজারে স্বাস্থ্যবিধি মানা তো দূরের কথা, অনেকের মুখেই নেই মাস্ক।
শনিবার (২১ নভেম্বর) সকালে পৌর শহরের শহীদ আকরাম সড়কে দেখা যায়, অনেকে মাস্ক ছাড়াই চলাফেরা করছেন। অনেকের থুতনির নিচে, আবার অনেকেই মাস্ক হাতে নিয়ে ঘুরছেন, কেউ আবার পকেটে রেখেছেন। লোকজনের অবস্থা দেখলে মনে হয় দেশে করোনার প্রাদুর্ভাব নেই। এদিকে সবার জন্য মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক করতে কঠোর অবস্থানে উপজেলা প্রশাসন। মাস্ক ছাড়া বাইরে বের হওয়ার কারণে শাস্তি পেতে হচ্ছে অনেককেই। মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করতে মোবাইল কোর্ট পরিচালিত হচ্ছে। তারপরেও সচেতন হচ্ছে না বিভিন্ন শ্রেণির পেশার লোকজন।

মাস্ক পরেননি কেন জিজ্ঞেস করলে রিকশাচালক রাশেদ আলী বলেন, দেখেন না কারও মুখে মাস্ক নাই। তাছাড়া ভ্যানচালক ও রিকশাচালক যে পরিশ্রম করে, তাতে করোনা ধরার ভয় নাই। এখানে কয়জনের মুখে মাস্ক আছে। আর আমার হাতে তো মাস্ক রয়েছে। তবে দেখবেন কারও না কারও ব্যাগে অথবা পকেটে মাস্ক আছে।

মাস্ক পরেননি কেন জানতে চাইলে পথচারী আরাফাত হোসেন জানান, অনেকের মুখেই তো মাস্ক নেই। এখন আর করোনার জন্য কেউ মাস্ক পরে না। তাছাড়া মুখে পান আছে, শেষ হলে পরে নেবো। মাস্ক নিয়ে এখন আর কেউ ভাবে না। তবে পকেটে আছে। শহরের কাপড় ব্যবসায়ী হাবিবুর রহমান বলেন, প্রশাসন ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করতে এলেই রিকসা চালক থেকে শুরু করে সবাই তারাহুড়া করেই মাস্ক পড়ে। আবার চলে গেলে আগের মতোই সবকিছু। করোনার ভয়ে নয়, এখানে প্রশাসনের ভয়ে লোকজন মাস্ক পড়ে।

এ বিষয়ে নন্দীগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা. শারমিন আকতার বলেন, মুখে মাস্ক না পরায় তাদের ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে জরিমানা করা হচ্ছে। মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক করতে আমাদের এই অভিযান চলমান রয়েছে। এছাড়া পুলিশ ও উপজেলা প্রশাসন মাঠে-ঘাটে ও গ্রামগঞ্জে যেখানে যাচ্ছে, করোনা প্রতিরোধে মানুষকে সচেতন করছেন বলে জানান তিনি।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না।