শেরপুরে প্রেমিকার বাড়ীতে হামলা ॥ প্রেমিক হায়দার বাহিনীর আতঙ্কে প্রেমিকার পরিবার

0 2,093

বিজয় বাংলা বিডি ।।   দীর্ঘদিন ধরে উত্যক্ত করে আসার একপর্যায়ে জোরপূর্বক অসামাজিক কার্যকলাপ করার চেষ্টায় বাড়ী থেকে প্রেমিকা রিক্তা আক্তারকে উঠিয়ে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে লম্পট প্রেমিক হায়দার আলীর বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় ২৭ জুন শেরপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের হয়। ঘটনাটি বগুড়ার শেরপুর উপজেলার গাড়ীদহ ইউনিয়নের মহিপুর জামতলা এলাকায় ঘটেছে। এ ঘটনার পর থেকে রিক্তার পরিবার লম্পট হায়দার বাহিনীর আতষ্কে ঘর থেকে বের হতে পারছেনা বলে ভুক্তভোগী রিক্তার পরিবার জানিয়েছেন।

জানাযায়, উপজেলার গাড়ীদহ ইউনিয়নের মহিপুর জামতলা গ্রামের মোঃ হানিফ এর ছেলে মোঃ হায়দার আলী একই গ্রামের ফটিক প্রামানিকের মেয়ে মোছাঃ রিক্তাকে দীর্ঘদিন ধরে উত্যক্ত করার একপর্যায়ে গত ঈদের পরদিন ফুসলিয়ে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে উঠিয়ে নিয়ে যায়। লম্পট প্রেমিক হায়দার আলী ওই মেয়েকে নিয়ে গিয়ে পাশর্^বর্তী উপজেলা ধুনটের গোশাইগাড়ী গ্রামে অবস্থান নিয়ে বিয়ের প্রলোভনে শারীরিক সম্পর্ক করে। পরে বিয়ে না করায় ঘটনার তিন পর ওই মেয়ে নিজবাড়ীতে ফিরে আসে এবং পরে থানায় অভিযোগ দায়ের করে।

এনিয়ে সম্প্রতি একপর্যায়ে পরে এলাকার গণ্যমান্য ব্যাক্তিদের নিয়ে মিমাংসার উদ্দেশ্য শেরপুর থানায় শালিশী বৈঠক হয়। বৈঠকে হায়দার আলী ও শিপন আলী দুই ভাই ভবিষতে তার এই ধরনের কাজ করবে না বলে মুচলিকা দিয়ে মুক্ত হয়। এঘটনার কিছুদিন পর ২৭ জুন শনিবার সকাল ৯টার সময় লম্পট হায়দার আলী, শিপন আলী, বাবু, মোহাম্মদ আলী সহ আরো ৫/৬জন প্রেমিকা রিক্তার পরিবারের উপর অতর্কিত ভাবে হামলা করে। এতে আহত হয় রিক্তার মা বিলকিছ বেগম, ভাই মাসুদ ও বাবা ফটিক। আহত অবস্থায় রিক্তার মা বিলকিছ বেগম শেরপুরে হাসপাতালে ভর্তি আছেন।
এ ঘটনার বিচারের দাবিতে বিক্ষুদ্ধ হয়ে উঠেছে স্থানীয় জনগণ এবং এলাকাবাসী। তারা এই ন্যাক্কারজনক ঘটনার মূল হোতা হানিফের ছেলে হায়দার আলীর দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দাবি করেন।

এ বিষয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শনকারী শেরপুর থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক সাচ্চু বিশ^াস বলেন, এ ব্যাপারে থানায় কোন লিখিত অভিযোগ পাইনি, তবে অভিযোগ প্রাপ্তি সাপেক্ষে আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Loading...